ঢাকা ০৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম
কুলাউড়ায় ছদরুন্নেছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন আ. লীগের বঙ্গভবন ইউনিট কমিটির শীর্ষ পদে মাদক ব্যাবসায়ি ও জামাত কর্মী হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু প্লাস্টিক বর্জ্য মুক্ত হচ্ছে মাধবকুণ্ড বিস্ফোরণের ঘটনায় মারা গেছেন লাইভ করা কুলাউড়ার অলিউর বিস্ফোরণের ঘটনা লাইভ করা কুলাউড়ার অলিউর নিখোঁজ মাতৃমৃত্যু কমলেও নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা না পাওয়ায় বাড়ছে জটিলতা ভারতে পেঁয়াজের কেজি ৩ রুপি, চাষিদের চোখে জল মাঙ্কিপক্স রোগীদের পোষ্যপ্রাণীর সংস্পর্শ এড়িয়ে চলার নির্দেশনা ৩৬ ঘণ্টার জন্য বাংলাদেশে আসছে ফুটবল বিশ্বকাপের ট্রফি

মাতৃমৃত্যু কমলেও নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা না পাওয়ায় বাড়ছে জটিলতা

#

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৮ মে, ২০২২,  11:35 AM

news image

মা ছাড়া কোনো মানুষের পৃথিবীতে আগমন এবং তার অস্তিত্বই কল্পনা করা যায় না। তবে একটি শিশু জন্মদানে একজন মাকে অনেক কষ্ট এবং স্বাস্থ্যঝুঁকির মধ্যদিয়ে যেতে হয়। একটি বড় সময় নিজের গর্ভে রেখেই একটি জীবনকে লালন করেন মা। এই গর্ভধারণের সময়, প্রসব এবং প্রসবপরবর্তী সময়ে মায়েদের দরকার নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা ও পরামর্শ। নিয়মিত পরামর্শ গ্রহণ জটিলতা তৈরির শঙ্কা কমায়।

জাতিসংঘ এবং ডব্লিউএইচও’র তথ্য অনুসারে, শিশু জন্ম দিতে গিয়ে প্রতিদিন প্রায় আটশ নারী মৃত্যুবরণ করেন। ২০১৩ সালে বিশ্বে দুই লাখ ৮৯ হাজার নারী গর্ভাবস্থায় এবং প্রসবের জটিলতার কারণে মারা যান। প্রতিবছর অন্তত সাত মিলিয়ন নারী প্রসব পরবর্তী গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যায় ভোগেন। এছাড়া আরও ৫০ মিলিয়ন নারী প্রসবের পর নানারকম স্বাস্থ্য জটিলতায় ভোগেন। বাংলাদেশে প্রতিবছর ১২ হাজার নারী গর্ভধারণ ও প্রসবের জটিলতার কারণে মারা যান।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মতে, বাংলাদেশে ধারাবাহিকভাবে মাতৃমৃত্যু কমছে। সংস্থাটি বলছে, ২০২০ সালে যেখানে ৮৮৪ জন মায়ের মৃত্যু হয়, সেখানে গত বছর তা কমে ৭৮৮ জনে নেমেছে। এছাড়াও বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) বলছে, ২০১০ সালে প্রতি লাখে মাতৃমৃত্যু ছিল ১৯৪ জন। এক দশকে তা কমে ১৬৫ জনে নেমেছে। তবে গ্রামে এখনো এই হার ১৯১ জন, শহরে যা ১২৩ জন।

এদিকে, গর্ভবতী নারীদের নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা ও পরামর্শ গ্রহণ বাংলাদেশে খুব একটা সন্তোষজনক নয়। এর ফলে গর্ভধারণের সময়, প্রসব এবং প্রসব পরবর্তী সময়ে জটিলতার আশঙ্কা বাড়ছে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যে জানা যায়, স্বাভাবিক সময়েই জনবল ও অবকাঠামোগত নানা সংকট ও চ্যালেঞ্জ থাকে। এর মধ্যে প্রায় দুই বছর করোনা মহামারির কারণে স্বাভাবিক স্বাস্থ্যসেবা আরও ব্যাহত হয়েছে। বাংলাদেশে গর্ভবতী নারীদের চারদফা সেবা গ্রহণের মধ্যে প্রসব পূর্ব সেবা নেওয়ার হার ২০২০ সালে প্রথমবার সেবা নেওয়ার হার ২৬ শতাংশ কম ছিল। দ্বিতীয়বার ২৫ শতাংশ, তৃতীয়বার ২৬ শতাংশ এবং চতুর্থবার ২৪ শতাংশ কম ছিল। এরপর ২০২১ সালে এসে প্রথমবার সেবা নেওয়ার হার বেড়েছে। তবে পরের তিন দফায় আগের মতোই কম। গত বছর প্রথমবার সেবা নেন ১২ লাখ ১৫ হাজার প্রসূতি নারী। সেখানে পরের তিন দফায় কমে তা নামে পাঁচ লাখেরও নিচে।

স্বাস্থ্যবিদরা জানান, ২০৩০ সালের মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক প্রসব ৭০ শতাংশে নিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক প্রসবের ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ সরকারিতে এবং ৮৫ শতাংশই বেসরকারি হাসপাতালে হয়ে থাকে।

logo

সম্পাদক ও প্রকাশক: মোঃ সিদ্দিকুর রহমান